HackrGirls, Developer Bootcamp For Women

Binoy Balu

3

 

HackrGirls Developer Bootcamp For Woman

                                                                  The Mozilla Kerala community organized a developer bootcamp for women called HackrGirls. The bootcamp turned out to be successful that gave us much more outcome than we expected. Thanks to all the energetic and enthusiastic ladies who were at the event. I’d like to thank Mozilla’s Developer Relations for sponsoring this event without which this would have been impossible to execute. I’m happy to know that February was an exciting month for the ladies who attended HackrGirls.

HackrGirls was a name chosen for igniting the light inside every girl who is interested in taking their coding skills to the next level. The event was a great event for Mozilla Kerala that was executed with the effort of the volunteers of Mozilla Kerala. Thanks to all those who worked behind the event. Federal Institute of Science And Technology (FISAT), one of the remarkable colleges who supports the activities of Mozilla provided a venue for the event.


IMG_9996

 

Day 1: 21-02-2015

 

The event was a bit delayed as the participants arrived late. After the event check-in at around 9:30AM. Praveen Sridhar kickstarted the event at around 10:15AM with the introduction about the event and the sessions that were scheduled for the event. He then conducted an ice-breaker session with Neethu Sajeevan for gearing up the ladies into the style of interactive learning. The icebreaker mainly aimed at collaboration and teamwork which is very important part of any project/mission.

Shine Nelson introduced version control systems. He talked about Git and Github to the participants. He covered the basics of git and it uses. He also talked about Internet Relay Chat (IRC) and helped everyone to join IRC. The session then dispersed for a tea break.


IMG_0009


 

We had four mentors for our event. Ms. Bhavana Bajaj (Release Manager, Firefox OS, Mozilla Corporation, USA), Ms. Chinmayi S K (Founding CEO, Saakshin Technologies), Mr. Sijo Kuruvilla (Founding CEO, Startup Village) and Ms.Tessy Joseph (Web QA Intern at Mozilla).


IMG_0108


 

IMG_0516


 

The session after the break was to make teams and collaborate themselves on finding their interest. Girls were divided into groups and shared their thoughts, ideas and interests. Each group, having a mentor, discussed about the possibilities and the openings for women in Mozilla and Open Source. Also they were introduced to the different ways of contributions. That was followed by another session on “Imposter Syndrome” by Chinmayi S K in support with Nidhiya V Raj and Neethu Sajeevan. It helped the girls a lot to understand about themselves and Chinmayi explained how to overcome the condition by tackling their mind. After the session, the event dispersed for lunch .

The afternoon session was on how to develop front-end technologies. Varghese Thomas E covered basic HTML and CSS. After the basics session, we had the tea break.


IMG_0380


Mr. Sijo Kuruvilla (Founding CEO, Startup Village) gave a talk on Entrepreneurship and the possibilities for women in technology. He explained about the upcoming programs on empowering women and made them understand the role of Entrepreneurship in Indian society. He answered most of their questions and doubts which was open to all to ask. It inspired the participants to getting a step over the concept of Entrepreneurship. The session closed at around 7:00PM

 

Day 2: 22-02-2015

 

The second day was the most enthusiastic day as it started with Ms. Bhavana Bajaj explaining about the Mozilla QA and Release Management. She introduced herself and then about her work history and current designation at Mozilla as Release Manager. She gave an introduction on how a version of Firefox OS is released after making sure it doesn’t crash after an update, etc.


IMG_0776


 

Ms. Bhavana led a BugBash and OneAndDone challenge. Each group were given a Firefox OS device to test and assigned some OneAndDone tasks as challenges. All the participants made bugzilla accounts and started filing bugs. The person who filed the most number of bugs was awarded a Firefox OS Flame device. Within half an hour, over 55 bugs were filed on bugzilla.mozilla.org. The OneAndDone challenge was completed by everyone. Bug Bashing was really interesting for girls to find bugs in each and every corner of the OS interface. After a tiring bug bash, lunch was served.


IMG_9675


 

The afternoon session was handled by Praveen Sridhar and Athul Suresh. The duo helped the participants in building an addictive-game along the lines of the all-time additive game – Flappy Bird. The game was built entirely on HTML, CSS and JavaScript using the PhaserJS library. At the end of the event, the participants were given yet another challenge – to adapt the game that was built by the participants in an innovative way. They were given a week’s time to complete their modifications and send them over to the organizers. We received an exciting bunch of entries for the challenge. In all, the event was a success with a lot of fun and enthusiasm and where the participants took home something useful.


Thank you Flore Allemandou for your heartly support . Here Is the Video for Whole Event :)

Women , Femininity & Techs

Maliha Momtaz Islam

1

I wrote this on International Women’s Day celebration 2014 in my blog , thought of sharing with you all. :-)

I’ve been working as a FSA and Womoz for 6 months now . It seems as if i started yesterday !! I’m still walking the path to achieve the dream I’m chasing after . Don’t know if i can succeed and achieve the ultimate goal of empowering every single mother , daughter and female friends through techs and FOSS . I dare to dream , i dare to dream a country where a girl will prefer to be techie or web maker rather than being a garments worker. I know it’s a long way to go but not impossible though .

Womoz came to me as that platform which paved me the way to work for my dream .Now Let’s see, how i’ve been doing that up until now !!!

So, how to get more women into tech ? Mentor ship programs ?? Sensitivity trainings ?? or may be Ruby on Rails barbie ?? NOPE !! I have a solution, that can increase the number of women in techs consequently and trust me, there’s no need of any conferences or any kind of memberships !! Anyone can do it , especially women themselves  😉  and we’ll allow them to get bolder and getting greater appreciation for what they do !!  Resolution?? If you wanna be respected in techs as women then don’t call yourself a “GIRL”. If we start referring all the women in tech as women, we’ll have a lot more women in techs getting rid of the girls . And when i say “women”,  i mean people who’ve Menstruated and pay taxes . If you do both you’re a women! It’s pretty simple!! 😀  Calling yourself a girl may be Cute and Fun but it’s hurtful to make an intact better working place and trust me i’m not alone who thinks like that !! Ask any working women around you  :)  you’ll get your answers !! There are many people out there who are only steps away from self-emulation. It is time to take action which’s actually a pretty serious topic because words are incredibly powerful !! They reinforce and reflects suicidal power  structures . Words can be as powerful protest as actions can be! Cause at the end of the day it’s about power . When people refer to someone who’s an adult women as a girl, it implies authority  part of the speaker. Girl is a diminutive.

Now let’s think about the word “BOY” for an adult man. Boys no toys , boys club….etc . It’s always said with more than a hint of condescension . Boys are immature , they are not to be trusted etc etc. You don’t want an organization filled with boys , right?  Well , what about girls?? girls can’t drive,they can’t join the army , they can’t vote and girls probably shouldn’t!! but most important of all “GIRLS” aren’t threatening . And  appropriating the word girl for an adult women?? Just doesn’t make any sense  at all to me  at least. Because it’s not confronting sexism or inverting any power structures, it’s just using the word “girls” for someone who’s old and why do we have such a problem with being old? I am very happy to be out of College,  as i’m pretty sure you all are to have the freedom. And i look forward the time when i’ll have enough wisdom to finish toughest challenges in just one setting !

Research shows that a lot of  women sabotage themselves in the workplace by starting sentences with things like “I may not be an expert”. They try not to appear to be kookie but what they are doing is, they are undermining a threat to their own authority and they’re making people take them less seriously. It’s like a disclaimer !! Calling yourself a girl in the workplace is the same thing . It diminishes you ! And to some people it can be interpreted like an authority and slip revealing “i’m not totally sure i should be here”! So in your spare time, sure go out with your friends and family !! Go  refer yourself  anything want to, but in the work place “geekgirls”?? NA-ah! Women Engineers aren’t some kind of mythical heroes for people to fantasize  about . The fact is: Being a women shouldn’t have to be sugarcoated. You’re women! Just like you’re a product manager or a coder or a social worker or anything !! Take charge of what you do and don’t apologize. You may not know everything and you may not have  experienced everything. But then again, c’mmon which man had knowledge on everything? You’re a women and don’t apologize for it ! You define the women that you are and if you’re uncomfortable calling yourself a women then ask yourself “why ?” . Because it’s about taking your work and yourself seriously. Just calling yourself a girl , does it say you’re here to take charge? kick ass and take names ? does it say you’re here to lead?  And for all the manly readers : you can help us out by calling us women ! as There are not a lot of us in tech. Just because a women calls herself a girl in the workplace doesn’t mean that you can. She may not feel comfortable in the environment.

So,  No actually , i don’t have a solution that can really increase the number of females in tech instantly. My solution is to increase the number of women. I know it’s not the answer but it’s one small and important change that all of us can make to make tech a better place for tax paying menstruators among us ! So, I’ll leave you with this, if Britney can figure out that she’s not a girl anymore, why can’t women in tech?

-Special Thanks to Caroline Drucker who made me think :)

WoMoz @ AdaCamp Berlin

Stefania Ioana

0

As mentioned in previous post, during the weekend of 11-12 October 2014 AdaCamp Berlin will take place at the Wikimedia Office in the beautiful capital of Germany. It will be the first time an AdaCamp is organized outside US.

WoMoz will be represented through Ioana Chiorean, Ednah Kiome, Dian Ina Mahendra and Kristi Progri which will be keeping us informed during the weekend.

AdaCamp is an unconference dedicated to increasing women’s participation in open technology and culture: open source software, Wikipedia and other wiki-related projects, open knowledge and education, open government and open data, open hardware and appropriate technology, library technology, creative fan culture, remix culture, translation/localization/internationalization, and more. ( from AdaCamp.org)

adacampFollow #Womoz and the accounts on Facebook, Twitter and Google+ to see what are the AdaCampers up to this time!

Womoz supports #HeForShe campaign

Flore

0

Womoz supports the HeForShe campaign, launched by Goodwill Ambassador Emma Watson at the United Nations.

If you also want to show your support to gender equality, just take a photo of you holding a sign with #HeForShe and #Womoz written on it and send it on the social networks.

Some of our early supporters:

Follow us on twitter and Google plus, like us on facebook.

Emma Watson’s UN Speech Fully Localized in Bangla

Maliha Momtaz Islam

1

We have established localization in the heart of our contribution , to be honest i , myself am a localizer and have started contributing through localizing the webmaker UI . But even after promising , i couldn’t contribute in localizing this wonderful yet thoughtful speech of my one of the most favourite actress Emma Watson 😉 in the UN except for a few lines only as i am busy . So i forwarded the message of Larissa to my community and thanks to our awesome community lead Mahay Alam Khan , he lead and made the L10n done with the help of our awesome contributors just with in the blink of an eye.Special thanks goes to Seeam , Salman and others to get the job done . Indeed HeForShe!! 😉

6928873-large

Emma Watson on her speech in the UN

The Bengali localized version of Emma Watson UN Speech is as follows –

গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে নিউইয়র্কে অবস্থিত জাতিসংঘের প্রধান কার্যালয়ে হিফরসি  উদ্যোগ নিয়ে বক্তব্য দেন জাতিসংঘের নারী বিষয়ক কার্যক্রমের শুভেচ্ছা দূত এমা ওয়াটসন। তার পূর্ণাঙ্গ বক্তব্য:

আজ আমরা ‘HeForShe’ নামের একটা প্রচারনা শুরু করেছি।

আমি আপনাদের কাছে এ বিষয়টি তুলে ধরতে চাই কারন আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে চাই এবং এ কাজে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।এটা জাতিসংঘের জন্য প্রথম একটি উদ্যোগ: আমরা চেষ্টা করছি লিঙ্গ বৈষম্যের বিষয়টিকে সবার কাছে তুলে ধরতে। যতটা সম্ভব মানুষের মাঝে বিষয়টি ছড়িয়ে দিতে। এবং আমরা শুধু কথাই বলতে চাই না, বাস্তবে যাতে এ বৈষম্য দূর করা যায় সেটি নিশ্চিত করতে চাই।

আমাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে ছয় মাস আগে এবং যত বেশি আমি নারীবাদ নিয়ে কথা বলেছি, ততই আমি বুঝতে পেরেছি যে, নারী অধিকার নিয়ে লড়াই করা আর পুরুষ বিদ্বেষী হওয়া একই কথা। যদি আমি একটা বিষয় নির্দিষ্ট করে জানি, তবে তা হচ্ছে: এটাকে বন্ধ করতে হবে।

প্রমান হিসেবে, নারীবাদের সংজ্ঞা হচ্ছে: “একটি বিশ্বাস, যে নারী এবং পুরুষ উভয়ের সমান অধিকার এবং সুযোগ থাকা উচিত। এটা উভয়ের জন্য রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সামাজিক সমতার মতবাদ”।

আমি আট বছর বয়স থেকেই লিঙ্গ-ভিত্তিক ধারনা সম্পর্কে প্রশ্ন করতে শুরু করি। আমাকে “নেত্রী” হিসেবে ডাকা হত এবং আমি এটা নিয়ে দ্বিধায় ছিলাম। কারন আমি চাইতাম, আমাদের অভিভাবকদের জন্য তৈরি করা নাটকের পরিচালক হতে– কিন্তু ছেলেরা চাইতো না।আমার বয়স যখন ১৪ তখন থেকেই মিডিয়া আমাকে যৌন আকর্ষক ভাবে উপস্থাপন করতে শুরু করে।

যখন আমার বয়স ১৫ তখন আমার মেয়েবন্ধুরা খেলাধুলা থেকে নিজেদের সরিয়ে নিল কারন তারা পেসিবুহুল হিসেবে নিজেদের উপস্থাপন করতে চাইল না। যখন ১৮ বছর বয়স আমার ছেলে বন্ধু তাদের অনূভুতি প্রকাশ করতে পারে নি।

আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে আমি একজন নারীবাদী ছিলাম এবং এটা তখন আমার কাছে তেমন জটিল মনে হয়নি। কিন্তু আমার সাম্প্রতিক গবেষণা আমাকে দেখিয়েছে যে, নারীবাদ এখন একটি অপ্রচলিত শব্দ হয়ে গেছে।

আপাতদৃষ্টিতে আমি এমন পর্যায়ের মহিলাদের মধ্যে পড়ি, যাদের অভিব্যক্তিকে খুব শক্তিশালী, আক্রমণাত্মক, আলাদা, পুরুষ বিদ্বেষী এবং আকর্ষণশূন্য বলে মনে হয়। কেন শব্দটি এত অস্বস্থিকর?

আমি ব্রিটিশ নাগরিক এবং চিন্তা করতাম একজন নারী হিসেবে আমার পুরুষ বন্ধু যা পাচ্ছে আমার ও তাই পাবার  অধিকার আছে। আমি মনে করি যে  নারী হিসেবে  সিধান্ত নেবার অধিকার আমার আছে। আমি মনে করি আমার দেশের নারীরা দেশের পলিসি এবং সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষেত্রে তাকে উচিত। আমি মনে করি সামাজিক ভাবে আমি সেই সম্মানেই পাই যা একজন পুরুষ পাচ্ছে। কিন্তু দুখের বেপার সারা দুনিয়ায় নারীরা এসব অধিকার পায় না।

কোন দেশই দাবি করতে পারবেনা যে, তারা লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে পেরেছে।

আমি ভাগ্যবান সেই অধিকারগুলো আমি পেয়েছিলাম যা আমি মানবাধিকার হিসাবে বিবেচনা করি। আমার জীবন কেবল বিশেষ অধিকারপ্রাপ্ত যে, আমার মা-বাবা মেয়ে বলে আমাকে কখনো কম ভালোবাসেনি। আমি মেয়ে বলে, আমার স্কুল আমাকে কখনো সীমাবদ্ধ করেনি। আমার প্রশিক্ষকরা কখনোই ভাবেননি, আমি হয়ত কম দূরে যেতে পারবো কারণ একদিন আমিও একটি সন্তান জন্ম দিবো। এই প্রভাব বিস্তারকারীরা লিঙ্গবৈষম্য দূত ছিলেন যারা আজকের আমিকে তৈরি করেছে। তারা হয়ত জানেওনা, কিন্তু অসতর্ক ভাবেই তারাও নারীবাদী ছিলেন। এবং আমাদের এরকম আরও অনেক কে দরকার। এবং এখনো যদি আপনি এই শব্দটি কে ঘৃণা করেন – এই শব্দ কে গুরুত্ব না দিয়ে বরং এর পিছনের চিন্তাধারা এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষা কে গুরুত্ব দিন। ১৯৯৭ সালে হিলারি ক্লিনটন বেইজিং-এ নারী অধিকার নিয়ে একটি বিখ্যাত বক্তব্য উপস্থাপন করেছিলেন। তখন তিনি যা যা পরিবর্তন করতে চেয়েছিলেন, তা এখনো রয়ে গেছে।

তবে যেটা আমার বেশি চোখে লেগেছে যে, শ্রোতাদের মধ্যে মাত্র ৩০  শতাংশ ছিল পুরুষ। কিভাবে আমরা পরিবর্তন আনবো, যেখানে মাত্র অর্ধেক লোক এসেছে বা এরকম কথাবার্তায় নিজেদেরকে স্বতঃস্ফূর্ত মনে করছে? পুরুষগণ– আমি আপনাদের এই আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণটি সম্প্রসারিত করার সুযোগ গ্রহণ করতে চাই। লিঙ্গ সমতার সমস্যাটি আপনারও সমস্যা। কারন আজ পর্যন্ত, একজন সন্তান হিসেবে, সমাজ আমার বাবার একজন অভিভাবক হিসেবে ভূমিকার চেয়ে মায়ের ভূমিকাকে কম মূল্য দিয়েছে; যদিও তাদের দুজনেরই আমার জীবনে সমান প্রয়োজন রয়েছে।

আমি তরুণদেরকে দেখেছি মানসিক রোগে ভুগতে। তারা সাহায্য চাইতে পারেনি, কারন তারা ভয় পেত যে সাহায্য চাইলে তাদেরকে কাপুরুষ মনে করা হবে। এমনকি যুক্তরাজ্যে ২০-৪৯ বছর বয়সী পুরুষ মারা যায় আত্মহত্যার কারনে; যা সড়ক দুর্ঘটনা, ক্যান্সার এবং হৃদরোগের চেয়েও বেশি। আমি পুরুষদের দেখেছি যে, সফলতার সংজ্ঞার কারনে তারা কিভাবে ভঙ্গুর হয়ে যায়। পুরুষদের মধ্যেও সম অধিকার নেই।

সমাজের লিঙ্গবৈষম্যে দ্বারা শৃঙ্খলাবদ্ধ পুরুষদের নিয়ে আমরা খুব বেশি কথা বলি না কিন্তু আমি অনুভব করেছি তাদের সীমাবদ্ধতা এবং এটাও বুঝতে পেরেছি যে যখন তারা এই শৃঙ্খল থেকে মুক্ত হবে তখন স্বভাবতই নারিরাও মুক্ত হবে । যদি পুরুষ মাত্রই আক্রমনাত্মক নাও হতে পারে তাহলে নারী মাত্রই নতমস্তক নহে । যদি পুরুষদের নিয়ন্ত্রণ করার প্রয়োজন না থাকে তাহলে নারীদেরও নিয়ন্ত্রিত হওয়ার আবশ্যকতা দেখি না ।

পুরুষ এবং মহিলা উভয়কেই মুক্ত মনে করা উচিত। পুরুষ এবং মহিলা উভয়কেই শক্তিশালী মনে করা . বিপরীতধর্মী শ্রেণী হিসাবে না দেখে দুইটি লিঙ্গকে একই বর্ণালিতে ফেলে দেখার সময় হয়েছে। যদি আমরা যা নই, তা দিয়ে আমাদের সংজ্ঞায়িত করা বন্ধ করি এবং আমরা সত্যিই যা, তা হিসেবে সংজ্ঞায়িত করতে শুরু করি, তাহলে আমরা আরও স্বাধীন হতে পারবো এবং এজন্যই HeForShe। এটা মুক্তির জন্য , স্বাধীনতার জন্য।

আমি চাই পুরুষেরা তাদের মজ্জার মধ্যে এটি ধারণ করুক , জাতে তাদের কন্যা , বোন এবং মায়েরা এই কুসংস্কার মুক্ত হতে পারেন এবং একই সাথে তাদের পুত্রদেরকে নিরাপদ ও মানবিক রাখার জন্যও – তাদের হারিয়ে যাওয়া স্বত্ত্বাকে তারা যেন খুঁজে পান এবং এভাবে যেন সার্থক ও স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উঠেন ।

আপনি চিন্তা করতে পারেন এই হ্যারি পটার এর মেয়ে টি কে? এবং সে জাতিসংঘের মঞ্চে কি করছে। এটি একটি ভালো প্রশ্ন এবং বিশ্বাস করুন আমি নিজেও নিজেকে জিজ্ঞাসা করছি এই একি কথা। আমি জানি না যদি আমি এখানে যোগ্যতাসম্পন্ন হই কিনা। আমারা সবাই জানি যে আমি এই সমস্যার ব্যাপারে যত্নশীল। এবং আমি এটি আরও ভালো করতে চাই এবং আমি  যখন দেখি তখন দেখি এবং সুযোগ পাই আমি মনে করি এটা আমার দায়িত্ত যে আমি কিছু বলি। ইংলিশ  এডমন্ড বুরক বলেনঃ “প্রকৃতপক্ষে খারাপ সকল স্বত্তার বিজয়কে নিশ্চিত করার জন্য কিছু ভাল নারী ও পুরুষের নিষ্ক্রিয় থাকাই যথেষ্ট ।”

এই বক্তৃতার জন্য আমার বিচলতা এবং আমার সন্দেহের সময়ে আমি নিজেকে দৃঢ় ভাবে বলেছি – যদি আমি না, তাহলে কে, যদি এখন না হয়, তাহলে কখন। যদি আপনার সামনে ঠিক একই সন্দেহ আসে যখন আপনার হাতে সুযোগ আছে, আমি আশা করবো আমার কথাগুলো আপনার জন্য সহায়ক হবে।

কারণ বাস্তবতা হচ্ছে এখনো যদি আমরা কিছু না করি তাহলে হয়ত ৭৫ বছর, কিংবা আমার মতে প্রায় একশ বছর লাগবে নারীদের একই কাজে পুরুষের সমান বেতন আশা করতে। ১৫.৫ মিলিয়ন কন্যা পরবর্তী ১৬ বছরে বাল্যবিবাহের স্বীকার হবে। এবং এই বর্তমান হারে ২০৮৬ সালের আগে সকল আফ্রিকান মেয়ের পক্ষে মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহন সম্ভব নয়। আপনি যদি সমতায় বিশ্বাস করেন, তাহলে আপনি তাদের মধ্যে একজন যারা অসাবধানী নারীবাদী আমি অাগেই ব্যক্ত করেছি এবং এইজন্য আমি আপনাকে সাধূবাদ জানাই।

আমরা একটি সংঘবদ্ধ শব্দের জন্য সংগ্রাম করছি কিন্তু ভাল খবর আমাদের সংঘবদ্ধ আন্দোলন আছে। এটা বলা হয় হিফরসি। আমি আপনাদের এগিয়ে আসার আমন্ত্রন জানাচ্ছি, দেখা হবে উচ্চকন্ঠে বলুন,

এবং জিজ্ঞাসা করুন নিজেকে যদি আমি না তাহলে কে ? যদি এখন না তাহলে কখন ?

ধন্যবাদ।